ছাত্রলীগ কি এখন রাজনীতির বিষ ফোড়া?
ভিজিট করতে ক্লিক করুন!
ভিজিট করতে ক্লিক করুন!

বিগত নির্বাচনীগুলির বৈতরণী পার হয়ে যাওয়া আওয়ামীলীগের অঙ্গ সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের বেপরোয়া অবস্থার চাইতে ২০১৮ সালের পর আওয়ামীলীগের অঙ্গ সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের অবস্থা আরও বেশী সহিংস ও বেপরোয়া, প্রশ্ন আসতে পারে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সভাপতি বিষয়টি কি দেখছেন নাকি দেখেও না দেখার ভান করছেন ? ছাত্রলীগ ছাত্রলীগে বন্ধুক যুদ্ধ, চাঁদাবাজি, নিরীহ মানুষের উপর হামলা থেকে শুরু করে হেন কোন অপকর্ম নাই যে ছাত্রলীগ দ্বারা সংগঠিত হচ্ছে না।

বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সাহেব দীর্ঘদিন যাবত হেন করেঙ্গা তো তেন করেঙ্গা, অনুপ্রবেশ কারীদের সহসাই চিন্হিত করণ ধরনের নানা হুমকি ধামকি দেবার পরও ছাত্রলীগ যেন আরও বেশী বেপরোয়া। মানুষ হাফ ছেড়ে বাঁচাতে চায় কিন্তু আইনের সুশাসনের অবনতির কারণে জনসাধারণ মুখে তালা এঁটে বসেছে। সর্বশেষ যেটা ঘটেছে সেটা হচ্ছে জমি সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে ব্যবসায়ীর চার আঙ্গুল কেটে নিলো ছাত্রলীগ নেতারা, ঘটনাটি ঘটেছে গত ১১ই মে ২০১৯, শনিবার দুপুরে সাতক্ষীরা জেলার কলারোয়া উপজেলায়।

কিছুদিন আগেই পদবঞ্চিতরা সম্মেলনের ১ বছর পর ঘোষিত ছাত্রলীগের ৩০১ সদস্যের পূর্ণাঙ্গ কমিটির ৯৯ জনের বিরুদ্ধে নানা অপকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগ জানায় অবশেষে দলের সভাপতি অপকর্মে জড়িতদের চিন্হিত করতে নির্দেশনা দেবার ঘোষণা দেন, কিন্তু বিষয়টি এতদূর গড়াবার আগেই কি দৃষ্টি দেবার প্রয়োজন ছিল না ?

বিতর্কিতদের মধ্যে ১৭ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নিয়েছিল ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক তাই তাদের বিরুদ্ধে প্রমাণ সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণে বুধবার রাতে ২৪ ঘণ্টার সময় নিয়েছিল তারা।

কিন্তু সময় শেষে আরও ২৪ ঘণ্টা কেটে গেলেও তাদের বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেয়নি সংগঠনটি, তাহলে বিষয়টি দাঁড়াচ্ছে যে স্বয়ং ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক নিজেরাই কথা দিয়ে কথা অ রাখতে পারায় অযোগ্যতা প্রমাণ করেছেন। মানুষের নিরাপত্তা দেবার তাগিদেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগের সকল কার্যক্রম আপাতত সাময়িক সময়ের জন্যে বন্ধ ঘোষণা করা।

আশা করি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করবেন।

=== মাহবুব আরিফ কিন্তু।

Please To Write An Article Sign-Up
error0
News Reporter

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *