পীযুষ দা আপনি কি বাংলাদেশী নাকি হিন্দু ??
ভিজিট করতে ক্লিক করুন!
ভিজিট করতে ক্লিক করুন!

বাংলাদেশের কিছু হিন্দুরা বাংলাদেশে হিন্দুত্ব প্রতিষ্ঠা করতে চায় . অথবা হিন্দু এবং মুসলমানদেরকে সম্পূর্ণ আলাদা করতে চায় . হিন্দুস্তানের হিংসাত্মক ও ধ্বংসাত্মক রীতিতে ধর্মীয় রাজনীতি করতে চায় .

বিশেষ করে বর্তমান সরকারের প্রশ্রয়ে ও ভারতের সরাসরি তত্বাবধানে এমন সাহস পেয়ে যাচ্ছে . চরম ” মুসলিম বিদ্বেষী” রাষ্ট্র ভারতের পাশে মুসলমান অধ্যুষিত দেশ হওয়া সত্বেও বাংলাদেশ অন্য সব গোত্র, বিশেষ করে হিন্দু বৌদ্ধদের সাথে জন্ম লগ্ন থেকেই ভালোবাসার সম্পর্কে বন্ধন রক্ষা করা আমাদের যুগ যুগের কৃষ্টি .

সামাজিকতা সহ সমাজের সকল স্তরে হিন্দুদের সর্বাগ্রে সন্মান ও সমান সুবিধা বন্টন করা হয় . সমাজের সব পর্যায়ে বরং কখনো কখনো সরকারের চাকুরীর ভালো পর্যায়গুলোতে হিন্দু ও অন্য ধর্মালম্বীদের মুসলিম থেকেও বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়ে থাকে . যা একমাত্র বাংলাদেশেই হয়ে থাকে . আমাদের মাঝে দ্বৈত বোধ কখনোই আসেনি .

আমাদেরকে কখনোই জাতি ধর্ম গোত্র বিশেষে কাউকেই পরিমাপ করার সামাজিক ও পারিবারিক শিক্ষা দেয়া হয়নি . আমরা মাঝেমাঝে হিন্দুদের প্রতি নির্যাতনের কথা শুনে থাকি . সমাজে প্রতিনিয়ত হরেক রকম ঘটনা যেমন , প্রতিবেশী ঝগড়া , বন্ধু বান্ধব ঝগড়া , জমিজমা সংক্রান্ত ঝগড়া যা আমাদের দেশে প্রতি মিনিটেই কয়েকটি করে ঘটে থাকে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে .

মুসলমানদের মাঝে নিজেরা যখন বিশাল বিবাদ ও মারামারিতে কারো প্রাণ চলে যায় , আমরা কখনোই মুসলমানের মৃত্যু হয়েছে বলিনা . কোনো মুসলিম কোনো হিন্দুর হাতে নির্যাতিত হলেও সেটাকে ধর্মীয় রূপে রূপদান করা হয়না . সাধারণ ঘটনার মতোই বিচার করা হয়ে থাকে .

শুধুমাত্র কোনো হিন্দুর সাথে ব্যক্তিগত পর্যায়ের ঝগড়া বিবাদকেও গণমাধ্যম ও এই সরকারের বিশেষ বাহিনী পুরোপুরি রাজনীতিতে রুপান্তর করার ঘৃণিত চেষ্টা করে . কোনো হিন্দুর ঘরের ঝগড়াকেও রাজনীতিকীকরণের সুযোগ হাতছাড়া করেনা আওয়ামীলীগের নেতা নেত্রীরা .

বিশেষ করে এই সরকারের আমলে হিন্দু গোত্রটিকে বিভিন্ন প্রলোভনে মুসলিম বিদ্বেষী করে তোলা হয়ে থাকে . হিন্দুদেরকে ব্রেন ওয়াশ করে শুধুমাত্র ভোট ও নিজেদের স্বার্থের জন্য মুসলমানদের বিরুদ্ধে দাঁড় করিয়ে দেয় . দুঃখজনক, আমরা এখনো বাংলাদেশী হতে পারিনি .

আমরা এখনো হিন্দু আর মুসলিমের মাঝেই সীমাবদ্ধ রয়েছি. আমার ব্যক্তিগত অনেক বন্ধু আছে যারা অন্য ধর্মালম্বী . দীর্ঘ লেখাপড়া জীবনে কখনোই মনেই আসেনি তারা অন্য ধর্মের . এই সরকারের প্রশ্রয় পেয়ে স্বনামধন্য অভিনেতা ( আমার প্রিয় ) পীযুষ দা যে মন্তব্য করেছেন তা অমার্জনীয় .

পীযুষ বন্দোপাধ্যায়ের মন্তব্যে আমাদের দেশের হিন্দু ধর্মালম্বী মানুষের হিংসাত্মক মানসিকতা স্পষ্ট ভাবেই ফুটে উঠেছে . ধর্মীয় কোন্দল সৃষ্টি করার মতোই তিনি বক্তব্য রেখেছেন . তিনি শুধুমাত্র সরকারের দৃষ্টিতে আসার জন্যে এমন অবিবেচক ও ভারসাম্যহীন মন্তব্য করেছেন .

বাংলাদেশেরমানুষ কখনোই এমন প্রিয় মানুষগুলো থেকে এহেন আচরণ আশা করেনা . নষ্ট রাজনীতি আমাদেরকে জাতি বিভেদের দিকে ঠেলে দিচ্ছে . এমন দ্বিধা ও বিভাজনের রাজনীতি নিশ্চয় অনিশ্চিত ভয়াবহ অন্ধকারের দিকেই ঠেলে দিবে . এখন থেকেই লাগাম দিন . সব ধর্মের মানুষদেরকেই বলছি .

ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করবেন না . আমাদের দেশ ধর্ম রাজনীতি করেনা . কারো ধর্ম অনুভূতিতে আঘাত দেয়া থেকে বিরত থাকুন .

সাইফুর রহমান সাংবাদিক

Please To Write An Article Sign-Up
error0
News Reporter

1 thought on “পীযুষ দা আপনি কি বাংলাদেশী নাকি হিন্দু ??

  1. এই প্রশ্নগুলো মুসলমানদের করা উচিত কারণ বাংলাদেশের মুসলমানরা কি মুসলমান নাকি বাংলাদেশী একটা প্রশ্ন। বাংলাদেশের সর্বত্র হিন্দু নির্যাতন হচ্ছে চরমভাবে। হিন্দুদের ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত দেওয়া হচ্ছে চরমভাবে । আর এর প্রধান মাধ্যম হচ্ছে ওয়াজ মাহফিল এছাড়াও পরিকল্পনা করে মাইকে ঘোষণা দিয়ে বাড়িঘর পুড়িয়ে দেওয়া হচ্ছে গ্রামের পর গ্রাম জ্বালিয়ে দেওয়া হচ্ছে। এগুলো কি সম্প্রীতিতে আছে? অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশের মুসলমানের কাজ যে কি সেটা আমি বুঝি নাই। সেটা আপনারা ভাল বোঝেন এবং আশা করি এগুলো নিয়ে আপনি লিখবেন যাতে করে ধর্মীয় বিভেদ সৃষ্টি না হয় ।আমাদের বাংলাদেশের সমাজে সমাজে সকলে মিলে শান্তিতে বসবাস করতে পারি সে ধরনের লেখা আশা করি লিখবেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *